চন্দনাইশ উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু আহমদ চৌধুরী’র গনসংযোগ

আগামী ২৯ মে অনুষ্ঠিতব্য চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ‘ঘোড়া’ মার্কায় ভোট চেয়ে ব্যাপক গণসংযোগ ও প্রচারণা চালাচ্ছেন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী চন্দনাইশ উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদ্য পদত্যাগকৃত সদস্য আলহাজ আবু আহমদ চৌধুরী। কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত উপজেলার সর্বত্র মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তিনি। সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে ভোট এবং দোয়া চাচ্ছেন। পাশাপাশি সাধারন ভোটারদের দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি।

শনিবার (১৮ মে) সারা দিন উপজেলার হাসিমপুর ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় ‘ঘোড়া’ মার্কায় ভোট চেয়ে গনসংযোগ করেন তিনি। গনসংযোগে বিপুল লোকের উপস্থিতি ও স্বতঃস্ফূর্ততা লক্ষ্য করা গেছে। প্রচারণায় ব্যাপক সাড়াও মিলছে সব বয়সের ভোটারদের কাছে।

নির্বাচনী প্রচারণা ও লিফলেট বিতরণকালে তাঁর সঙ্গে ছিলেন- চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম রহমানি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন শীবলি, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বেলাল হোসেন মিঠু, হাসিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম, জেলা যুবলীগ নেতা সম্রাট হোসেন চৌধুরী সবুজ, পৌরসভা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর মোঃ লোকমান, ইউ.পি সদস্য মোহাম্মদ হেলাল উদ্দীন, মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ, মোহাম্মদ শামসুল আলম, জেলা যুবলীগ নেতা গাজী মোহাম্মদ রিপন, হাসিমপুর ইউনিয়ন যুবলীগ আহবায়ক সাইফুল ইসলাম, যুগ্ম আহবায়ক আব্দুর রহমান, এডভোকেট মোঃ ফোরকান উদ্দিন, গিয়াস উদ্দিন রায়হান, জমির উদ্দিন চৌধুরী, দুলাল চৌধুরী, মাইনুল ইসলাম পুতুল, নাজিম উদ্দীন, রহমত আলী, এডভোকেট সোহেল আরমান, ছাত্রলীগ নেতা শফিউল হোসেন, ইলিয়াছ চৌধুরী বাবর, মোঃ মামুন, আয়াজ উদ্দিন, ইফতেখার বাবুল সহ অন্যান্য নেতাকর্মীগণ।

পথসভায় বক্তব্য রাখার সময় আলহাজ আবু আহমদ চৌধুরী বলেন, “আমি রাজনীতিতে পরীক্ষিত একজন কর্মী। তাই জনগণের সেবা করা জন্যই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থিতা ঘোষণা করেছি। রাজনৈতিক কর্মী হওয়ায় চন্দনাইশের সর্বস্তরের জনগণের সাথে আমার নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। জেলা পরিষদের সদস্য থাকাকালীন সময়ে আমি আমার জায়গা থেকে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি চন্দনাইশের মানুষের জন্য কাজ করে তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকার জন্য। এখনো সাধারণ মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছি, ভবিষ্যতেও থাকতে চাই।”

তিনি আরো বলেন, “উপজেলা পরিষদ হচ্ছে জনগনের উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দু। উপজেলায় সৎ ও আর্দশ মানুষ নির্বাচিত হলে জনগণের কল্যানে কাজ হবে। আমি নির্বাচিত হলে চন্দনাইশ উপজেলায় মাদক, কিশোরগ্যাং, সন্ত্রাস, নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো। শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে এ উপজেলাকে একটি স্মার্ট উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলবো। আপনারা আগামী ২৯ মে ‘ঘোড়া’ মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে নির্বাচিত করে আপনাদের সেবা করার সুযোগ করে দিবেন।”

আরও পড়ুন