মিয়ানমারে চলছে গোলাগুলি, বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ৫টি স্কুল বন্ধ

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে রাখাইন রাজ্যে বিদ্রোহীদের পাল্টাপাল্টি গোলাগুলি চলছে ঘুমধুম-তুমব্রু সীমান্তে। মিয়ানমারের মর্টার শেল এসে বাংলাদেশে পড়ায় সীমান্তে ৫টি স্কুল বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

সোমবার (২৯ জানুয়ারী) বেলা ১১টার দিকে ঘুমধুম, তুমব্রু, তুমব্রু পশ্চিমকুল, ভাজাবুনিয়া ও বাইশফাঁড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো বন্ধ করা হয়। নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা শিক্ষা অফিসার ত্রিরতন চাকমা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ত্রিরতন চাকমা বলেন, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে মিয়ানমার অংশে বেশ কিছুদিন ধরে গোলাগুলি হচ্ছে। এতে এ সীমান্তের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে গেছে ২২ জানুয়ারি আর আজ (২৯ জানুয়ারি) ভয়াবহ অবস্থা। শিক্ষার্থীরা ভয় পাচ্ছিল। অভিভাবক মহলের আকুতি এবং শিক্ষকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা শিক্ষা অফিসারের অনুমতি নিয়ে পাঁচটি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ করে দেওয়া হয়।

ভাজাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছৈয়দুর রহমান হীরা বলেন, অবস্থা বেগতিক দেখে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সোমবার ১১টার পর স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরওয়ার আলম, আলী আকবর ও ছৈয়দ আরম বলেন, সোমবার ভোররাতে গোলাগুলি শুরু হয়। দুপুর নাগাদ থেমে চলে চলছিল। একটি মর্টারশেল এসে পড়ে তুমব্রু পশ্চিম কূলের ছৈয়দ হোসেনের ছেলে বাহাদুর উল্লাহর বাড়িতে। এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি মর্টারশেল বাংলাদেশ অংশের ঝোপঝাড়ে পড়ার পর লোকজন ছোটাছুটি করতে থাকে নিরাপদ আশ্রয়ে।

ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, গত ২২ জানুয়ারির চেয়ে আরও ভয়াবহ অবস্থা। মূলত তুমব্রু কোনারপাড়ার অদূরের টিলা থেকে বিদ্রোহী আরকান আর্মি তুমব্রু রাইট ক্যাম্পে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ঘাঁটিতে মর্টার শেল নিক্ষেপ করছিল। পক্ষান্তরে তারাও মর্টারশেল নিক্ষেপ করে। এভাবে তুমুল সংঘর্ষ চলছে। যা থেকে মর্টারশেল এসে পড়ে তুমব্রু পশ্চিম কূলে।

এ বিষয়ে ৩৪ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. সাইফুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ওপারে যাই হোক, এপারে বাংলাদেশ সীমান্ত রক্ষী সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছে। এপারে লোকজন নিরাপদ আছে। আতঙ্কের কোনো কারণ নেই।

কক্সবাজারের ৩৪ বিজিবি অধিনায়ক কর্নেল মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম চৌধুরী জানান, শুক্রবার থেকে মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষের মধ্যে নাইক্ষ্যংছড়ি, উখিয়া ও টেকনাফ সীমান্তে ১৩টি মর্টার শেল ও দুটি গুলি এসে পড়েছে। বিজিবির পক্ষ থেকে তাত্ক্ষণিকভাবে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশকে (বিজিপি) প্রতিবাদলিপি পাঠানো হয়েছে।

সীমান্ত এলাকা পরিদর্শনে বিজিবির মহাপরিচালক নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু বিওপি এলাকায় যান। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান সফরসঙ্গীসহ সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেন।

এ সময় তিনি সীমান্ত পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত হন। আর বাংলাদেশ সীমান্ত রক্ষীদের দিক নির্দেশনা দেন। পাশাপাশি বিজিবিকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেন তিনি।

আরও পড়ুন