জাল টাকা সংক্রান্ত সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন

জাল টাকা সংক্রান্ত অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। দেশে জাল টাকা প্রতিরোধ ও এ-সংক্রান্ত অপরাধের বিচারের জন্য ‘জাল মুদ্রা প্রতিরোধ আইন- ২০২৩’ নামে নতুন একটি আইনের খসড়া চূড়ান্ত করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ।

খসড়া আইনে জানানো হয়, জাল টাকা সংক্রান্ত অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। পাশাপাশি এমন অপরাধ সংঘটনের মাধ্যমে অর্জিত সম্পত্তির দ্বিগুণ বা এক কোটি টাকা পর্যন্ত- যেটি বেশি, সে পরিমাণ জরিমানা করা হবে। এ সম্পর্কিত গুজব ছড়ালে সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড ও ১০ লাখ টাকা অর্থদণ্ডের বিধানও রাখা হয়েছে।

আইনে আরো বলা হয়েছে, সাত ধরনের অপরাধ করলে অপরাধী সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং এর মাধ্যেম অর্জিত সম্পত্তির দ্বিগুণ মূল্যের সমপরিমাণ বা এক কোটি টাকা পর্যন্ত, যেটি বেশি সেই অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। অর্থ অনাদায়ে অতিরিক্ত পাঁচ বছর কারাদণ্ড ভোগ করবেন।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, বর্তমানে দণ্ডবিধি-১৮৬০ এর ৪৮৯(ক)-(ঘ) ধারা এবং বিশেষ ক্ষমতা আইন, ১৯৭৪ এর ২৫(ক) ধারা অনুযায়ী জাল নোটসংক্রান্ত অপরাধের বিচার হয়। বিশেষ ক্ষমতা আইন, ১৯৭৪-এ এক্ষেত্রে শাস্তি হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড অথবা ১৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড। তবে এতে কী ধরনের অপরাধের কী শাস্তি হবে, তা সুনির্দিষ্ট করা হয়নি। একইভাবে দণ্ডবিধি-১৮৬০ অনুযায়ী, এ-সংক্রান্ত অপরাধের শাস্তি হচ্ছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড অথবা ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড। এক্ষেত্রেও শাস্তির বিধানগুলো সুনির্দিষ্ট নয়।
তাই জাল নোট সংক্রান্ত মামলার বিচার সুচারুভাবে সম্পাদন সম্ভব হয় নয় বলে জানান কর্মকর্তারা।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ ধরনের অপরাধের পরিধি বেড়েছে। তাই অপরাধের নতুন নতুন ধরন সংযোজন করে অপরাধের ধরন অনুযায়ী শাস্তি সুনির্দিষ্ট করে এক্ষেত্রে একটি আলাদা নতুন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

অর্থ বিভাগের ওয়েবসাইটে খসড়া প্রকাশ করে অংশীজনের মতামতের ভিত্তিতে চূড়ান্ত করা হয়েছে।

খুব শিগগির এটি অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপনের পাশাপাশি অন্যান্য কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে।