নিজ দেশের মুদ্রা বিনিময়ের চুক্তি চীন-সৌদি আরব

নিজ নিজ মুদ্রায় লেনদেন করতে এক চুক্তি স্বাক্ষর করে চীন ও সৌদি আরব।

বিশ্লেষকদের মতে, এই চুক্তি মূলত ডলারের প্রভাব কমানো বা ডি-ডলারাইজেশনের ক্ষেত্রে দুই দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে গেল। -খবরে বিজনেস ইনসাইডার।

যদিও চীনের সবচেয়ে বড় জ্বালানি সরবরাহকারী দেশ হলো রাশিয়া কিন্তু দেশটি সৌদি আরবের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ জ্বালানি তেল কিনে থাকে। উদাহরণ হিসেবে ২০২২ সালের কথাই ধরা যাক। চীনের সরকারি তথ্য বলছে, সে বছর চীন সৌদি আরবের কাছ থেকে সাড়ে ৬ হাজার কোটি ডলারের তেল কিনেছে। সৌদি আরব চীনে যে পরিমাণ রপ্তানি করে তার ৮৩ শতাংশই জ্বালানি তেল।

রয়্যাল ব্যাংক অব কানাডার প্রতিবেদনে বলে, রাশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে চীন ২৫ শতাংশ পণ্যের মূল্য পরিশোধ করে রেনমিনবি বা ইউয়ানে। গত সেপ্টেম্বরে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে আর্থিক সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান জেপি মরগান জানিয়েছিল, বিশ্ব জ্বালানি বাজারে ডলারের বদলে অন্যান্য মুদ্রায় জ্বালানির লেনদেনের হার ক্রমেই বাড়ছে।

ব্লুমবার্গের বিশ্লেষণ করা তথ্যে বলছে—গত সেপ্টেম্বরে চীনের বৈদেশিক লেনদেনের ক্ষেত্রে ইউয়ানের ব্যবহার ব্যাপকভাবে বেড়েছে। সে মাসে দেশটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ১১৭ দশমিক ১ বিলিয়ন ইউয়ান লেনদেন করেছে।

চুক্তির আওতায় চীন সৌদি আরবের সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ইউয়ানে মূল্য পরিশোধ করবে যার পরিমাণ সর্বোচ্চ ৫০০০ কোটি ইউয়ান। বিপরীতে সৌদি আরব ২ হাজার ৬০০ কোটি রিয়াল লেনদেন করবে চীনের সঙ্গে। এই চুক্তিকে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ডলার হটানোর প্রয়াসে চীনের তরফ থেকে ইউয়ানের আন্তর্জাতিকীকরণ প্রচেষ্টা হিসেবেই অনেকে ভাবছেন। অর্থের পরিমাণ যদিও বেশ কম তবে এই চুক্তির প্রতীকী মূল্য অনেক বেশি। কারণ সৌদি আরব বিশ্বের সবচেয়ে বড় তেল রপ্তানিকারক দেশ এবং বিশ্বের জ্বালানি বাজারের অধিকাংশ লেনদেনই সম্পন্ন হয় ডলারে।

কেবল সৌদি আরব নয়, এর আগেও চীন বিশ্বের আরও কয়েকটি দেশের সঙ্গে রেনমিনবিতে লেনদেনের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এসব দেশের মধ্যে আর্জেন্টিনা উল্লেখযোগ্য। বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে প্রাপ্ত তথ্য বলছে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে চীন ইউয়ানে লেনদেনের জন্য প্রায় ২৯টি চুক্তি করেছে। এসব চুক্তির আওতায় প্রায় ৪ লাখ কোটি ইউয়ান লেনদেন হবে।

এ ছাড়া বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের আওতায় চীন বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যেমন পেরু ও মালয়েশিয়ার সঙ্গে ইউয়ানে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

আরও পড়ুন