উৎসবমুখর প্রচারণায় জমে ওঠেছে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের নির্বাচন


২৭ অক্টোবর, ২০২১ ৪:০৪ : অপরাহ্ণ

সম্পূর্ণ বেসরকারি উদ্যোগে জনসাধারণের অর্থায়নে ১৯৭৯ সনের ৩১ ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠিত চট্টগ্রাম মা শিশু ও জেনারেল হাসপাতালের কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরী হয়েছে পুরো চট্টগ্রামে। জণগনের অর্থায়নে পরিচালিত এ হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সম্পাদকীয় ও সদস্য পদ মিলিয়ে ২৪পদের বিপরীতে দুটি প্যানেলের ৪৮জন এবং সদস্য পদে ৭ স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলিয়ে মোট ৫৫ প্রার্থীর প্রচারণা নির্বাচনকে একটি উৎসবে পরিণত করেছে।

৩০ অক্টোবর, ২০২১খ্রীঃ শনিবার সকাল থেকে আগামী ৩ বছরের জন্য কার্যনির্বাহী কমিটি গঠনের লক্ষে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এ নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশিনার (উন্নয়ন) মোহামম্মদ মিজানুর রহমান। তার সাথে ৩জন সহকারী কমিশনার নির্বাচন কমিশনের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। নির্বাচনে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ শরিফ উল্ল্যাহ রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন। ৩১টি কেন্দ্রে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে একজন প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে দায়িত্ব পালন করবেন।

এবারের নির্বাচনে ৯১১৯জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে আাগামী ৩ বছরের জন্য পরিচালনা কমিটি গঠন করবেন।

নির্বাচনকে সামনে রেখে গত ১৯ সেপ্টেম্বর তফশিল ঘোষণা করেছিলো নির্বাচন কমিশন। তফশিলে প্রেসিডেন্ট, ভাইস প্রেসিডেন্ট ৪জন, জেনারেল সেক্রেটারী, জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী ২জন, ট্রেজারার, জয়েন্ট ট্রেজারার, অর্গানাইজিং সেক্রেটারী, স্পোর্টস এন্ড কালচারাল সেক্রেটারী, মেম্বার ১০জন, ডোনার মেম্বার ২জন সহ মোট ২৪টি পদ উল্লেখ করেছিল কমিশন। খড়সা ভোটার তালিকা প্রকাশ, যাচাই বাছাই শেষে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করে কমিশন। প্রাপ্ত মনোনয়ন যাচাই বাছাই শেষে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা থেকে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত ২জন বাদে বাকী ৫৩জন থেকে ২২জন ভোটারদের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হবেন। নির্বাচনে কোন প্রতীক থাকবে না। ভোটাররা প্রার্থীর নাম, ছবি ও ব্যালেট নাম্বার দেখে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে প্রফেসর এম.এ তাহের খান, জেনারেল সেক্রেটারী পদে রেজাউল করিম আজাদের নেতৃত্বে একটি প্যানেল এবং প্রেসিডেন্ট পদে ডাঃ আঞ্জুমান আরা ইসলাম ও জেনারেল সেক্রেটারী পদে ডাঃ আরিফুল আমিনের নেতৃত্বে আরেকটি প্যানেল প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এর বাইরে সদস্য পদে ৭জন স্বতন্ত্র প্রার্থীও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

তাহের খান-রেজাউল করিম আজাদ প্যানেল থেকে যারা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন, তারা হলেন- ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে আব্দুল মান্নান রানা, ইঞ্জিনিয়ার লায়ন জাবেদ আবছার চৌধুরী, ডা. মোহাম্মদ পারভেজ ইকবাল শরীফ, জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী ডা.কামরুন নাহার দস্তগীর, ট্রেজারার লায়ন ড.মোহাম্মদ সানাউল্ল্যাহ, জয়েন্ট ট্রেজারার লায়ন এস এম কুতুব উদ্দিন, অর্গানাইজিং সেক্রেটারী মোহাম্মদ সাগির, স্পোর্টস এন্ড কালচারাল সেক্রেটারী আলহাজ্ব মোঃ আহছান উল্ল্যাহ, মেম্বার পদে যথাক্রমে ডা. আবু তৈয়ব, মোহাম্মদ আলমগীর পারভেজ, ডা.কামরুন নেসা রুনা, এম.জাকির হোসেন তালুকদার, এএসএম জাফর, ডা.মোহাম্মদ জাহিদ হোসেন শরীফ, ডা.নাসির উদ্দিন মাহমুদ, ডা.ফজল করিম বাবুল, আলহাজ্ব মো.হারুন ইউসুফ, মোহামম্মদ শহীদ উল্ল্যাহ।

ডাঃ আঞ্জুমান আরা ইসলাম ও ডাঃ আরিফুল আমিন প্যানেল থেকে যারা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন, তারা হলেন- ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে আলহাজ্ব আবুল হোসেন, ডা.এম মাহফুজুর রহমান, ডা.মো.পারভেজ ইকবাল শরীফ, জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী মিসেস রেখা আলম চৌধুরী, ট্রেজারার মো.আনোয়ারুল ইসলাম, জয়েন্ট ট্রেজারার ডা.মোহাম্মদ লিয়াকত আলী ভুইয়া, অর্গানাইজিং সেক্রেটারী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, স্পোর্টস এন্ড কালচারাল সেক্রেটারী মো.জাহিদুল হাসান, মেম্বার পদে যথাক্রমে আলহাজ্ব ইয়াছিন চৌধুরী, ওসমান গণি মনসুর, ডা.মোহাম্মদ ওয়াজেদ চৌধুরী অভি, গোলাম বাকী মাসুদ, ছৈয়দ ছগীর আহমদ, নাজমুল হক ডিউক, মো.নজরুল করিম চৌধুরী, সৈয়দ নুর নবী লিটন, রাশেদুল আমিন রাশেদ, ডা. হোসেন আহম্মদ, লায়ন ডা.দুলাল দাশ।

এদিকে ভাইস প্রেসিডেন্ট (ডোনার) পদে অন্যকোন প্রার্থী না থাকায় সৈয়দ মোহাম্মদ মোরশেদ হোসেন এবং জয়েন্ট জেনারেল সেক্রেটারী (ডোনার) পদে সৈয়দ মো. আজিজ নাজিম উদ্দিন তাহের খান-রেজাউল করিম আজাদ প্যানেল থেকে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচনের সামগ্রিক প্রস্তুতি এবং ফলাফল সর্ম্পকে জানতে চাইলে আঞ্জুমান আরা ইসলাম বলেন, আমরা জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী ইনশাল্লাহ। আজীবন সদস্যরা আমাদের কর্মকান্ড সর্ম্পকে ওয়াকিবহাল আছেন। নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমূখর হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিদ্বন্ধি অন্য প্যানেল প্রধান প্রফেসর তাহের খান বলেন, করোনাযোদ্ধাদের প্যানেল আমাদেরটি। সুতরাং আজীবন সদস্যরা ও চট্টগ্রামবাসী আমাদের সাথে আছেন। আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ। তিনিও নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হবে বলে মতামত ব্যক্ত করেন।

তবে ভোটররা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের অভিমত, কোন প্যানেল নয়, যোগ্যরাই নির্বাচিত হবে। হাসপাতালের উন্নয়নে যারা ভূমিকা রেখেছেন, কাজ করেছেন ভোটাররা তাদেরকেই নির্বাচিত করবেন। আশ্বাসের গড্ডালিকায় গা ভাসাতে নারাজ ভোটাররা। দেখে শুনে ভেবেচিন্তে তারা এবার ভোট দিতে চান। তাই লড়াইটাও হবে হাড্ডাহাড্ডি, এমনটাই অভিমত ভোটারদের।

চট্টগ্রাম মা শিশু ও জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) মোশারফ হোসেন বলেন, নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। নির্বাচন কমিশন তাদের কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের ইতোমধ্যে নির্বাচন সর্ম্পকে অবহিত করা হয়েছে। নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার বা গোলযোগের সুযোগ নেই। এটি একটি চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান। এখানে সবসময় শান্তিপুর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

এদিকে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা শরিফ উল্ল্যাহ বলেন, ২৭ তারিখ রাত ১২টা থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা বন্ধ হয়ে যাবে। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সকল রকম প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্য মোতায়েন থাকবে বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

Print Friendly, PDF & Email

ট্যাগ :

আরো সংবাদ


বাংলা English
%d bloggers like this: